লিভার নষ্টের জন্য যে ১০ টি বাজে অভ্যাস দায়ী !!!

By  |  0 Comments

লিভার নষ্টের জন্য যে ১০ টি বাজে অভ্যাস দায়ী !!!http://www.wikisky.info/

যকৃৎ (ইংরেজি: Liver) মেরুদণ্ডী ও অন্যান্য কিছু প্রাণীদেহে অবস্থিত একটি অঙ্গ। এটি প্রাণীদেহেরবিপাকে ও অন্যান্য কিছু শারীরিক কাজে প্রধান ভূমিকা পালন করে।  যকৃৎ দেহের বিভিন্ন জৈব-রাসায়নিক প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করে। যকৃত. ২টি খন্ডে বিভক্ত,ডান এবং বাম। লিভারের ওজনের পাঁচ থেকে দশ ভাগের বেশি চর্বি দিয়ে পূরণ হলে যে রোগটি হয় তাকে ফ্যাটি লিভার বলে।পশ্চিমা বিশ্বে সাধারণত মদ্যপানের কারণে ফ্যাটি লিভার হয়ে থাকে। তবে বহুমূত্র ,শর্করা জাতীয় খাদ্যের আধিক্য,রক্তে চর্বির আধিক্য, উচ্চ রক্তচাপ, স্থূলতা ইত্যাদি কারণে ফ্যাটি লিভার হয়। লিভারে জমা চর্বি অনেক সময় স্থানীয় প্রদাহ সৃষ্টি করে এবং এ প্রদাহ থেকে কিছুসংখ্যক রোগীর লিভার সিরোসিস, এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে লিভার ক্যান্সারও হতে পারে। প্রাথমিক অবস্থায় এই রোগের কোনো উপসর্গ থাকে না, অন্য রোগের পরীক্ষা করার সময় সাধারণত রোগটি ধরা পড়ে।কখনো কখনো পেটের উপরিভাগের ডানদিকে ব্যাথা,অবসন্নতা, ক্ষুধামান্দ্য ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দিতে পারে। আমাদের দেহের সুস্থতা অনেকাংশে নির্ভর করে লিভারের উপরেই। আমাদেরই কিছু বাজে অভ্যাসের কারণে প্রতিনিয়ত মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে লিভার। জেনে বুঝে, আবার অনেকেই না জেনে কিছু বাজে কাজের মাধ্যমে দেহের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই অঙ্গটি ধীরে ধীরে নষ্ট করে ফেলছেন ।

১) রাতে খুব দেরিতে ঘুমাতে যাওয়া ও সকালে দেরি করে ঘুম থেকে ওঠাঃ অনেক দেরি করে ঘুমুতে যাওয়া এবং অনেক দেরি করে ঘুম থেকে উঠা । এতে শারীরিক স্বাভাবিক কার্যক্রমের সম্পূর্ণ উল্টোটা ঘটতে থাকে। যার মারাত্মক প্রভাব পরে লিভারের উপরে।

২) সকালে মূত্রত্যাগ ও পর্যাপ্ত পানি পান না করাঃ অনেকেই সকালে ঘুম থেকে উঠার আলসেমিতে প্রস্রাবের বেগ হলেও বাথরুমে যান না। এতে লিভারের উপরে চাপ পড়তে থাকে এবং লিভার স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারায়।

৩) অতিরিক্ত খাবার খাওয়াঃ অতিরিক্ত খাওয়া লিভারের জন্য ক্ষতিকর । অনেকেই রয়েছে অনেকটা সময় না খেয়ে একবারে অনেক বেশি খেয়ে ফেলেন। এতে করে লিভারের উপরে চাপ বেশি পরে যায়, ফলে লিভার ড্যামেজ হওয়ার আশংকা থাকে।

৪) সকালে নাস্তা না করা বা দেড়িতে করা ।

৫) মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ সেবন করাঃ বিশেষ করে ব্যথানাশক (Pain killer) ঔষধ অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়ার প্রভাব পড়তে থাকে লিভারের কর্মক্ষমতার উপরে। এছাড়াও ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ক্ষতি হয় লিভারের।

৬) প্রিজারভেটিভ, ফুড কালার ও খাবার মিষ্টি করতে কৃত্রিমভাবে সুইটেনার ব্যবহার করাঃ

কেমিক্যাল সমৃদ্ধ যেকোনো জিনিসই লিভারের জন্য ক্ষতিকর। আলসেমি ও মুখের স্বাদের জন্য আমরা অনেকেই আর্টিফিশিয়াল ফুড কালার, প্রিজারভেটিভ খাবার, আর্টিফিশিয়াল চিনি ইত্যাদি খাওয়ার অভ্যাস লিভার নষ্টের অন্যতম কারণ।

৭) রান্নায় অস্বাস্থ্যকর তেল ব্যবহার করাঃ খারাপ তেল, পুরাতন বাসি তেল ও অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার লিভারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। একই তেলে বারবার ভাজা খাবার বা পোড়া তেলের খাবার খাওয়া হলে লিভারের স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারাতে থাকে।

৯) অ্যালকোহল, ধুমপানঃ ধুমপান, মদ পান করা লিভার নষ্টের আরেকটি মূল কারণ। অ্যালকোহলের ক্ষতিকর উপাদান সমূহ লিভারের মারাত্মক ক্ষতির কারণ।

১০।ভাজা-পোড়া জাতীয় খাবার খাওয়া ও ভাজার সময় অতিরিক্ত তেল বা বাসি তেল ব্যবহার করা।

email
Read More  Breastfeeding Twin Babies
happywheels

Learning By Day and Writer By Night

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *